1. jamalpurvoice2020@gmail.com : Editor : Zakiul Islam
  2. ullashtv@gmail.com : TheJamalpurVoice :
মেলান্দহে এক শিক্ষক দিয়ে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম – Jamalpur Voice
সংবাদ :
জামালপুরে প্রকৌশলীকে পিটিয়ে দরপত্র ছিনতাই এর ঘটনায় অভিযোগ পত্র দাখিল বকশিগঞ্জে স্বামীর লিঙ্গ কর্তন স্ত্রী ও ভাগ্নে আটক দেওয়ানগঞ্জে ইউএনর নির্দেশে পল্লী বিদ্যুৎ এর দুই কর্মচারীকে বেঁধে রাখার অভিযোগ মেলান্দহে সড়ক দুর্ঘটনায় ব্র্যাক কর্মকর্তা নিহত অপসোনিন ফার্মা আয়োজিত বিশ্ব পরিবেশ দিবসে জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে বৃক্ষ বিতরণ জামালপুরে নাদিম হত্যার সাথে জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে প্রতিবাদ সমাবেশ জামালপুর জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ মুশফিকুর রহমান জামালপুর জেলার শ্রেষ্ঠ সার্কেল নির্বাচিত হয়েছেন সোহরাব হোসাইন ঈদুল আজহা উপলক্ষে ক্যাটল স্পেশাল ট্রেনে গরু যাচ্ছে ঢাকায় কামালখান হাট ফাজিল ( ডিগ্রি) মাদরাসায় আলিম পরীক্ষার্থীদের জন্য আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠিত

মেলান্দহে এক শিক্ষক দিয়ে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম

  • Update Time : Sunday, February 11, 2024
  • 16 Time View

কাফি পারভেজ, জামালপুর প্রতিনিধি:

জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার চর উত্তর রুস্তুম আলী মাস্টার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক–সংকটের কারণে এক শিক্ষক দিয়ে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম। শিক্ষক–সংকটের কারণে বিদ্যালয়টিতে প্রতিবছর শিক্ষার্থী কমে যাচ্ছে।

জানা যায়, মেলান্দহ উপজেলার চর উত্তর রুস্তুম আলী মাস্টার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ২০১৭ সালে সরকারীকরণ হয়। ২০১৮ সাল থেকে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন শাহ জামাল। তখন বিদ্যালয়ে আরও একজন সহকারী শিক্ষক ছিলেন। ২০২২ সালের ডিসেম্বরে ওই সহকারী শিক্ষক বদলি হয়ে চলে যান। এর পর থেকে তিনি একাই বিদ্যালয়টি সামলাচ্ছেন। বিদ্যালয়ে ৬৯ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। তাদের মধ্যে প্রাক-প্রাথমিকে ১০ জন, প্রথম শ্রেণিতে ১০, দ্বিতীয় শ্রেণিতে ১২, তৃতীয় শ্রেণিতে ১২, চতুর্থ শ্রেণিতে ১৩ ও পঞ্চম শ্রেণিতে ১২ জন শিক্ষার্থী রয়েছে।

বিদ্যালয়টিতে রয়েছে একতলা বিশিষ্ট একটি পাকা ভবন। তবে শিক্ষার্থীদের পাঠদানের শিক্ষকের অভাব। শিক্ষকের পাঁচটি পদের বিপরীতে আছেন একজন। তাঁর নাম শাহ জামাল, যিনি বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক। এক বছর ধরে তিনি একাই ক্লাস নিচ্ছেন ও দাপ্তরিক দায়িত্ব পালন করছেন। শিক্ষক না থাকায় বিদ্যালয়টিতে ঠিকমতো ক্লাস হয় না। তাই শিক্ষার্থীরাও স্কুলে আসতে চায় না। শিক্ষক–সংকটের কারণে বিদ্যালয়টিতে প্রতিবছর শিক্ষার্থী কমে যাচ্ছে।

প্রধান শিক্ষক শাহ জামাল জানান, প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে থাকায় প্রায়ই তাঁকে দাপ্তরিক বিভিন্ন কাজে উপজেলা সদরে যেতে হয়। শিক্ষক না থাকায় অভিভাবকেরা সন্তানদের এ বিদ্যালয়ে ভর্তি করতে চান না। একসময় এই বিদ্যালয়ে প্রায় ১৫০ জন ছাত্রছাত্রী থাকলেও শিক্ষক-সংকটের কারণে কমতে কমতে এখন ৬৯ জনে ঠেকেছে। অনেক অভিভাবক ছাড়পত্র নিয়ে যা”েছন।

স্থানীয় অভিভাবকরা জানান, বিদ্যালয়টি প্রত্যন্ত চরাঞ্চলের মধ্যে। বিদ্যালয়ে যাতায়াতের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো নয় বলে এখানে শিক্ষকেরা থাকতে চান না। এক বছর ধরে বিদ্যালয়ে একজনই শিক্ষক। শিক্ষক– সংকটের কারণে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী কমে যাচ্ছে। তাঁরা দ্রুত সময়ের মধ্যে বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগের দাবি জানান।

বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির কয়েকজন শিক্ষার্থী জানায়, শিক্ষক না থাকায় ঠিকমতো তাদের ক্লাস হয় না। অনেক সময় তারা নিজেরা ক্লাসে বসে থাকে। প্রতিদিন সব মিলিয়ে ১৫ থেকে ২০ জনের বেশি হয় না।
বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য আনোয়ার হোসেন বলেন, সরকারীকরণ হওয়ার পর থেকেই বিদ্যালয়ে শিক্ষক নেই। এক বছর ধরে প্রধান শিক্ষক একাই আছেন। মূল সমস্যা, বিদ্যালয়ের রাস্তাঘাট ভালো নয়। এখানে শিক্ষকেরা আসতে চান না। দু-একজন এলেও খুব দ্রুত বদলি হয়ে যান।

মেলান্দহ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী বলেন, এ উপজেলায় সদ্য যোগদান করেছি। তবে ইতিমধ্যে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক–সংকটের বিষয়টি জেনেছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষক দেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

সম্পাদক: জাকিউল ইসলাম কর্তৃক জামালপুর থেকে প্রকাশিত। ইমেইল: jamalpurvoice2020@gmail.com

জামালপুর ভয়েজ ডট কম: সকল স্বত্ব সংরক্ষিত
Customized BY NewsTheme